Quantcast
ADs by Techtunes tAds
ADs by Techtunes tAds

টেকটিউনস – ডিজিটাল প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় আপনি এডমিশন নিয়েছেন তো?

টিউন বিভাগ এডুটিউনস
প্রকাশিত
জোসস করেছেন

হ্যালো টেকটিউনস কমিউনিটি, কেমন আছেন সবাই? টেকটিউনসের সাথে প্রযুক্তির নিত্য নতুন আবিস্কার এবং প্রযুক্তি ক্যারিয়ার গড়ার সুত্র ধরে সামনে এগিয়ে যাচ্ছেন আশা করি। আরে টেকটিউনসের মতো প্লাটফর্মে থেকে আপনি প্রযুক্তির এই সম্ভাবনাময় যুগে সামনে এগিয়ে যাবেন না তা কিন্তু হয় না! আসলে টেকটিউনস আমাদের নিত্য নতুন প্রযুক্তির উৎকর্ষতা এবং প্রযুক্তিময় জীবন দিয়ে বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে চলতে সহযোগিতা করছে।

ADs by Techtunes tAds
ছবি - Shutter Stock

যেখানে ভবিষ্যৎ বিশ্ব প্রযুক্তি ছাড়া অচল, সেখানে প্রযুক্তি না জেনে চলবেন কীভাবে? আমি গত কয়েক দিন আগে ১০ বছর বা তাঁরও পরে যে জব বিশ্ব লিড দিবে শিরোনামে একটি টিউন করেছিলাম যেখানে প্রযুক্তি নিয়ে পড়াশুনা করা বা যারা প্রযুক্তি নিয়ে পড়াশুনা করে না কিন্তু সাথে সাথে প্রযুক্তির জ্ঞান রাখে তাদের জন্যই ভবিষ্যৎ বিশ্ব অপেক্ষা করছে বলে গবেষকদের মত ছিল।  😈

সেহেতু আপনি কোথায় পড়াশুনা করেন বা কোন সাবজেক্টে পড়াশুনা করেন এটা ব্যাপার না, আপনাকে বিশ্বের নিত্য নতুন জবের সাথে নিজেকে মানিয়ে আপনাকে অবশ্যই প্রযুক্তির সাথে থাকতে হবে।

আজকে আপনি যদি ব্যাংকের ম্যানেজার হন বা অন্য কোন কর্পোরেট জব করেন আপনি প্রযুক্তি জ্ঞান ছাড়া কি নিজেকে অন্য কলিগদের সাথে মানিয়ে নিতে পারবেন? কখনই না। আপনার প্রমোশন বা নতুন কিছু প্রাপ্তির জন্য এই প্রযুক্তিই আপনাকে এগিয়ে দিবে বহু দূরে। যেটা আপনি অন্য কোন বিষয়ে অভিজ্ঞ হলে পাবেন না। সেহেতু নিজের ভবিষ্যতের জন্য নিজেকে প্রযুক্তিতে দক্ষ করে তুলবেন আশা করি।  💡

বাংলাদেশ এবং শিক্ষাব্যবস্থাঃ

আমরা যারা প্রযুক্তিপ্রেমী তারা সবাই কোন না কোন স্কুল, কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র? অবশ্যই! তবে বাংলাদেশের পড়াশুনার মান এতো তত্ত্বীয় ধর্মী যে এখানে হাতে কলমে শেখা বা বাস্তব ধর্মী প্রশিক্ষণ পাওয়া আদৌ কতোটা সম্ভব?

আমি বলবো বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয় গুলোর এখানে এক চেটিয়া দোষ নাই। আসলে আমাদের শিক্ষার মান সার্বিকভাবে উন্নত হচ্ছে না। আমরা একজন স্টুডেন্ট হিসাবে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এমন কিছু শিখতে পারি না  যা আমাদের দূর ভবিষ্যৎ নির্ধারণ করবে বা দূর ভবিষ্যতের কথা বলবে।

কারণ একবার আমার বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষকের কাছে ২০১২ সালের দিকে শুনেছিলাম বিভিন্ন দেশের শিক্ষা পদ্ধতি সম্পর্কে। (তিনি শিক্ষা ব্যবস্থার গবেষক ছিলেন তখন) সেখানে তিনি আমাদের মাঝে চীনের শিক্ষা ব্যবস্থা নিয়ে আলোচনা করছিলেন।  🙄

“চীনের স্টুডেন্টরা আমাদের মতো পড়াশুনা করে, তাদেরও আমাদের মতো আন্তর্জাতিক মানের বই আছে, কিন্তু তাদের সেই পাঠ্য বই যেটা স্কুলে পড়ানো হবে সেটা কেউ বাসায় নিয়ে যেতে পারবে না। তাদের সবার জন্য স্কুলেই পার্সোনাল ডেস্ক আছে, যার ভেতর তাদের সকল বই খাতা যা পড়াশুনার জন্য দরকার ওখানে থাকবে, শিক্ষক বুঝাবেন, আপনি বুঝবেন। ঐখানেই কিছু মৌখিক পরীক্ষা বা আলোচনা হবে সবার মধ্যে, সেখান থেকে জানা বা বোঝার উপর শিক্ষক তাঁকে মার্ক দিবেন, সে বাড়ি চলে যাবে স্কুলের বই ছাড়া, বাড়ি যেয়ে সে তাঁর পছন্দ মতো বই পড়বে, তাঁর পছন্দের যেকোনো কাজ করবে, খেলবে এবং শিখবে। ঠিক পরবর্তী দিন একই ভাবে স্কুলে এসে স্কুলের শিক্ষক যা পড়াবেন সেটাই তাদের বুঝে ওখানেই উত্তর দিতে হবে, শিক্ষক সাথে সাথে ছাত্র মুল্যায়ন করবেন। বাড়ি নিজেদের ইচ্ছামতো পড়াশুনা বা প্রাক্টিক্যাল কাজ শেখা বা খেলাধুলা করা ছাড়া কোন কাজ নেই। ”  😎

ADs by Techtunes tAds

যেদিন আমি গল্পটা শুনেছিলাম সেইদিন থেকে মনে হতো আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থাও যদি এমন হতো তাহলে আমাদের ঘরে ঘরে আজ বিজ্ঞানী থাকতো, লেখক থাকতো, ইঞ্জিনিয়ার থাকতো, কৃষিবিদ থাকতো, পরিচালক থাকতো, উদ্যোক্তা থাকতো। কিন্তু আমরা কি তাঁর কিছুই পেয়েছি? 😉

স্বাধীনতার পর থেকে দেখান তো বাংলাদেশে কোন বৈজ্ঞানিক জন্ম নিয়েছে যিনি বিশ্ব ব্যাপি সমাদৃত। সম্ভব না, কারণ আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থা। এখানে না পারবেন মন খুলে কিছু শিখতে না পারবেন নিজের মতো কিছু জানতে। শুধু ক্লাস, ক্লাস, ক্লাস আর এক্সাম, পরীক্ষা আর রেজাল্ট! কি করবো এই রেজাল্ট আমরা?  যদি সেটা আমাদের মনের পরিপূর্ণ বিকাশ না ঘটায়।

বাংলাদেশের সাহিত্য সব সময় উন্নত। সমগ্র বিশ্বে বাংলা সাহিত্য নিয়ে গবেষণা হয়। একজন ভালো সাহিত্যিক বা লেখক দেখান তো ভালো ভাবে পড়াশুনা শেষ করছিলেন। পারবেন না। কারণ সৃষ্টি করতে গেলে সৃষ্টির রহস্য জানতে হয় নিজের বাস্তব অভিজ্ঞতা থাকতে হয় প্রত্যেক কাজে। যা আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থা দিতে পারে না। তাই এখন আর নতুন ভালো লেখকও জন্ম নেন না, বিজ্ঞানী তো দূরের কথা!  😳

 আমার বিশ্ববিদ্যালয় টেকটিউনস এবং গুগলঃ

এবার আসি প্রযুক্তি জ্ঞানের দিকে। আমি যখন প্রথমে প্রযুক্তি নিয়ে খুব ঘাটা ঘাটি শুরু করলাম তখন বাংলাদেশের অনেক প্রযুক্তিবিদ বা প্রযুক্তি জ্ঞানীকে বিভিন্ন বিষয়ে প্রশ্ন করতাম। বেশির ভাগ একটা কথা বলতেন, গুগল করেন। গুগল করেন। আমি পড়লাম মহা চিন্তায়। কেন শুধু গুগল করবো? আর আমিতো গুগল করতে হয় কীভাবে সেটাই তো ভালোভাবে জানি না। তাহলে কি করবো? গুগলে সার্চ করা শিখবো কীভাবে?

হ্যাঁ! কথা যা শুনছেন সব সত্য। তখন (এখনও) ইংরেজিতে এতো বেসিক লেভেলের আর্টিকেল পাইতাম না। এতোদিনে টেকটিউনসের সাথে পরিচিত হয়ে গেছি। একদিন টেকটিউনসে একটা টিউন পড়েই শিখে গেলাম গুগল করা সম্পর্কে। তারপর থেকে আমি প্রতিনিয়ত গুগল করে চলেছি।  🙄

আরেকটা কথা কি জানেন গুগলে বেশির ভাগ আর্টিকেল খুঁজে বের করতে সমস্যা হয়, কারণ আপনি বেসিক না জানলে গুগল থেকে বেসিক জানা খুব কষ্টসাধ্য। কারণ এখানে বেশিরভাগ রাইটার তাদের এডসেন্স বা এফিলিয়েট নিয়ে চিন্তিত। তারা শুধু কন্টেন্ট অপ্টিমাইজ করে এডওয়ার্ডস অনুসারে।

যেকারনে পরবর্তীতে আমি কোন বিষয় গুগল করার আগে সেই বিষয়ে বেসিক কিছু জানার জন্য টেকটিউনস সার্চ করি। ফলে টেকটিউনস থেকে বেসিক শিখে, আমি গুগল করা শুরু করলাম। শিখছি, শিখছি আর শিখেই চলেছি।  😈

ADs by Techtunes tAds

একদিন আবিষ্কার করলাম টিউটোরিয়াল মানের যেকোনো আর্টিকেল গুগল থেকে খুঁজে পাওয়ার চেয়ে টেকটিউনসের চেইন টিউন বা পর্ব ভিত্তিক টিউন কম গুরুত্বপূর্ণ না। সেখান থেকেও মিডিয়াম লেভেলের শিক্ষা খুব ভালো ভাবেই পাওয়া যায়।

গত বছর হঠাৎ চীনের শিক্ষা পদ্ধতি নিয়ে একটা ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেখেছিলাম। সেখানে আমার স্যারের উপরের গল্পটি বলা ছিল। আর বিঃদ্রঃ দিয়ে লেখা ছিল আমি জানি না এই শিক্ষা ব্যবস্থা হুবহু চীনে এখন আছে কিনা, তবে বইয়ের বদলে নাকি স্টুডেন্টরা এখন ল্যাপটপ ক্লাসে রাখে? আজকে আমার আর সেটা জানতেও ইচ্ছা করে না। আজকের প্রযুক্তি শেখার জন্য আমাকে আর চীনের স্টুডেন্টকে হিংসাও করতে হয় না। কারণ এতোদিনে আমি টেকটিউনসকে পেয়ে গেছি। সেখান থেকে শিখে চলেছি প্রতিনিয়ত।  😛

সেই সাথে আছে আমার গুগল। গুগল থেকে শিখি, টেকটিউনস থেকে শিখি। মাঝে মাঝে কিছু নিজের জানা টেকটিউনসে টিউনের মাধ্যমে শেয়ার করি।

আজ তাই আমার বিশ্ববিদ্যালয় লাগে না প্রযুক্তি শেখার জন্য। ১০০+ প্রযুক্তির বিভাগ আছে আমাদের টেকটিউনসে। যেটা শিখতে মন চাই। ঢুকে পড়ি সেই বিভাগে। নিজে জানি। যেটা বুঝতে সমস্যা হয় গুগলে একটু সার্চ করি। টিউনারকে টিউমেন্ট করি। ব্যস এভাবে দিনের পর দিন আমার শেখা চলে যাচ্ছে।

তাইতো বলি টেকটিউনস এবং গুগল দুইটাই আমার কাছে বিশ্ববিদ্যালয়। ঠিক যেমন বিশ্ববিদ্যালয় আমি চাইতাম, সেই রকমই। আমার মনের মতো বিশ্ববিদ্যালয়।  😉 এখানে পেয়েছি স্বীকৃতি যা আমাকে বিশ্ববিদ্যালয়ও দেই নি। ট্রাডিশনাল বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ছি শুধু সার্টিফিকেটের জন্য। আর শেখার যা তা এই টেকটিউনস এবং গুগল থেকে।

টেকটিউনস বিশ্ববিদ্যালয় না থাকলে আজকে বাংলাদেশের মানুষ এই প্রযুক্তি বিশ্বে ফ্রিতে প্রযুক্তি না শিখতে পারলে টিকে থাকতো কীভাবে?  😯

এই উত্তর আপনাদের মুখ থেকে শুনতে ইচ্ছা করছে।

আমার মতো কার কার প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় টেকটিউনস। টিউমেন্ট করে জানিয়ে দিন আজ বিশ্বকে, নিজের কিছুটা প্রাপ্তি তৃপ্তির সাথে শেয়ার করুন আজ আমাদের মাঝে।

ADs by Techtunes tAds

আর আসুন সবাই এক সঙ্গে আবৃত্তি করে উঠি,

"বিশ্ব জোড়া পাঠশালা মোর টেকটিউনসের আমরা ছাত্র

প্রযুক্তি জানতে বাংলার মানুষ হবে না দমবার পাত্র!"  😉

টেকটিউনস; যেখানে চলে প্রযুক্তি নাস্তা। বাংলাদেশে প্রথম ডিজিটাল প্রযুক্তি বিষয়ক পাঠাগার। আমি বলি ডিজিটাল প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়

ধন্যবাদ সবাইকে!  🙄

ADs by Techtunes tAds

আমি আইটি সরদার। , Educator বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 5 বছর 7 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 265 টি টিউন ও 1763 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 10 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।

আমি ইমরান তপু সরদার (আইটি সরদার),পড়াশুনা শেষ করছি কম্পিউটার প্রযুক্তিতে (২০১৮)। ব্লগিং করি নেশা থেকে ফেব্রুয়ারি ২০১৩ থেকে। লেখালেখির প্রতি শৈশব থেকেই কেন জানি অন্যরকম একটা মমতা কাজ করে। আর প্রযুক্তি সেটা তো একাডেমিকভাবেই রক্তে মিশিয়ে দিয়েছে। ফলস্বরুপ এখন আমার ধ্যান, জ্ঞান, নেশা সবকিছু তথ্য-প্রযুক্তি এবং লেখালেখি নিয়ে। আমি নিজে...


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস

ধন্যবাদ ।

অসাধারন।

ভাল লাগল |

অনেক সুন্দর টিউন

জুলেভান বলে ছিলেন “সব লোকের ঘাড়েই মাথা আছে, কিন্তু মস্তিষ্ক আছে কিনা সেটাই প্রশ্ন“। আপনার টিউনটা এক কথায় সত্যই অসাধারণ। আপনার মত এভাবে কখনই চিন্তা করিনাই। যাই হোক বিষয়টি এভাবে জানানোর জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।

    @রোমেল বগুড়া: অধ্যাপক আব্দুল্লাহ আবু সাঈদ স্যারের একটা কথা অনেক ভালো লাগে, “আমাদের অভিভাবক একেক জন প্রতিভার ঘাতক, যে ছেলেমেয়ে আইনস্টাইন হওয়ার কথা, বাবা-মা তাঁকে বানাতে চান ইঞ্জিনিয়ার, যার রবীন্দ্রনাথ হওয়ার কথা, অভিভাবকেরা তাঁকে বানিয়ে ফেলেন ডাক্তার!!” কথাটা টিউন করার সময় হুবহু খুঁজে পাচ্ছিলাম না, এজন্য যোগ করতে পারি নাই। আপনার কথা শুনে এখন মনে পড়ে গেলো। 😯 তাই বলে ফেললাম!!

    আসলে স্টিভ জবসের এক কথা দিয়ে পৃথিবীর সব সৃষ্টি সম্ভব, “থিংক ডিফ্রেন্ট” কিন্তু আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থা স্বাধীনভাবে সেই শিক্ষা আমাদের দেয় না!!
    কিন্তু প্রযুক্তি জানার ইচ্ছুকদের টেকটিউনস সেই সুযোগ দেয়। সেজন্য আমাদের ধন্য হওয়া উচিৎ। 😉

    ** ধন্যবাদ আপনার মূল্যবান টিউমেন্টের জন্য!! 🙂

আসল কথা কি ভাই আমাদের ইচ্ছার কোন মূল্য নেই , আর এজন্যই আমাদের দেশে আইনস্টাইন , স্টিভ জবস , গেটস রা জন্ম নেন না 🙁

    @Ashikur Rahman Tomal: এক্সাটলি! আমাদের শিক্ষা পদ্ধতি এবং অভিভাবক এখানে অনেক বেশি দায়ী এজন্য!! 😉

    ** ধন্যবাদ সহমত প্রকাশের জন্য। 😯

“চীনের শিক্ষা পদ্ধতি” জেনে ভালো লাগলো । ইশ! আমাদের যদি তাই হতো কতইনা ভালো হতো । ভালো টিউন ধন্যবাদ ।

অনেকে আমাকে পার্সোনালী ফেসবুকে ম্যাসেজ করছেন, কীভাবে টেকটিউনস বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হবো? কোথায়? ইত্যাদি ইত্যাদি!! তাদের জন্য বলছি, টেকটিউনস ডিজিটাল বিশ্ববিদ্যালয়, যার প্রযুক্তি শিক্ষা কার্যক্রম এখানে হয় বিভিন্ন টিউটোরিয়াল এবং টিপসের মাধ্যমে। 😉
যে শিক্ষা স্বাধীন ঠিক চীনের শিক্ষার মতো!! সেহেতু আপনি টেকটিউনস থেকে শিক্ষা নিতে শুরু করলেই আপনি এখানে ভর্তি হয়ে গেছেন। আর এড্রেসঃ http://www.techtunes.com.bd/

** আশা করি বুঝতে সমস্যা হবে না। ধন্যবাদ!! 😯

আপনার টিউন টি অসাধারণ হয়েছে।।। 🙂
আমি টিটি তে নতুন।এখানে আমি একটি টিউন করতে চাই। কিন্তু আপনার টিউনে অনেক আকর্ষনীয় জিনিস রয়েছে।যেমন:হেড লাইন এর অক্ষর আন্ডার লাইন এবু বোল্ড,প্রথম অক্ষর বড় ইত্যাদি।এসব কিভাবে করতে হয় তা যদি বলতেন তাহলে খুবই উপকৃত হতাম। 😀

    @টাইগার স্ক্রিপ্ট: প্রথমেই টিউমেন্টের জন্য ধন্যবাদ!!
    আপনি স্ক্রিনশটটা দেখুন, ঐ মেনুগুলো ব্যবহার করুন আমার মতো টিউন করতে পারবেন। আন্ডার লাইন এবং বড় টেক্সট করতে Heading 2/3 এগুলো ব্যবহার করুন। 😉

    স্ক্রিনশট লিঙ্কঃ http://prntscr.com/77ecf5

    ** ধন্যবাদ থাকছেই!! 😯

“কারণ সৃষ্টি করতে গেলে সৃষ্টির রহস্য জানতে হয়”___ এই সৃষ্টি বড়ই রহস্যময়!!

আসলেই কথা গুলো ভাববার মতো ৷ শিক্ষা ব্যবস্থাটা পরিবর্তন করতে পারলে দেশটা আরো এগিয়ে যেত, তবে চীনের মত সিষ্টেম করলে হয়তো আমাদের দেশের ছেলে-মেয়েরা, হয়তো খারাপ দিকে এগোবে, তাছারা আমাদের বাঙালিদের আলসেমিটাতো রয়েছেই ৷ ধরুন তাদের মতো সিষ্টেম হলো সব পরা ক্লাশেই কমপ্লিট ,আর সরাদিন ফ্রী তখন সবাই আড্ডাতে মগ্ন, কেউবা খারাপ সঙ্গের কারনে হবে মাদকাশক্ত ৷
আসলে দেশটাকে বদলাতে হলে আমাদের ভাবনা আর দৃষ্টিভঙ্গিটা বদলাতে হবে ৷ আর শিক্ষাব্যবস্থাটা এটার ব্যপারে আর কি বলবো আমাদের দেশে শিক্ষিতদের অভাব কেন যানেন? তা হলো অনার্সের ভর্তি যুদ্ব, অনেক অনেক না আনেক বল্লে ভুল হবে মেক্সিমাম স্টুডেন্টরা পরাশুনা ছেরে দেয় এই ভর্তি যুদ্বে না জেতার কারনে, আর প্রাইভেট ভার্সিটি এগুলোতে পরার এবিলিটি কজনেরইবা আছে ?? ও আর একটা কথা মনে পরে গেল ফালতু ছবির কাহিনি ,আচ্ছা আমাদের দেশে ভার্সিটি ফর্ম কেনার জন্য ধরুন লাগবে ৮ পয়েন্ট তাহলে যারা এর কম পেয়েছে তাদেরকে কি করবে? ? তাদের তো আবার পরীক্ষা দেয়ার সুযোগ ও দিচ্ছে না , তাহলে তারা ঐ পয়েন্টেই পাশ রাখুক যা দিয়ে অন্তত ফর্ম কেনার যোগ্যতাটা অর্জন করা যায় ৷
আর সিটের ব্যাপারে কি বলবো যত ছাএ-ছাএী পরীক্ষা দেয় তার তুলনায় সীট অতি সামান্য আর প্রতি বছর যে হারে স্টুডেন্ট বারছে তার তুলনায় সীট বারানো হচ্ছেনা ৷ তাহলে বাকি স্টুডেন্টরাকি ঘাস কাটবে নাকি ট্রনের চাক্কায় হাওয়া দেবে? ??? এখানে কথা গুলো বলে কোন লাভ হয়তো হবে না তাও মনের ভাব টা প্রকাশ করলাম
বি:দ্র: – কিছু বানান ভুলের জন্য স্যারি

    কথাগুলো ফেলানোর ভেতরে না, তবে রীতি নীতি বদলালে যে মানুষ ভালো খারাপের পার্থক্য বুঝবে না তা কিন্তু না।
    😯
    উন্নত বিশ্ব সম্পর্কে যতো বই বা মুভি দেখছি তাতে তারা নেশায় আসক্ত কম দেখি নি, তবে নিজের জানার পরিধি এতো বেশি যে সময় মতো শুধরে যেতে ভোলেন না। অনেকে হয়তো বলবে ঠাণ্ডা দেশে ড্রিঙ্কস চলে আমাদের মতো দেশে না, তাদের জন্য আমার নিজের জানা বা পড়ার অভিজ্ঞতা থেকে বলছি নেশা কিন্তু সব দেশে সমানই সমান হয়। তবে আমাদের দেশের মানুষ কাজ আর নিজের জানার অভাবে নিজেকে এক সময় সব কিছু থেকে বাদ দিয়ে নেশাই করে।

    তবে সেই সব দেশে দেখছি তারা আমাদের থেকে নেশা কোন অংশে কম করেন না কিন্তু নিজের একটা পার্সোনাল কাজ বা ক্ষেত্র তৈরি করে ফেলেন ছোট থেকেই নিজের প্রতি কন্ট্রোল থেকে, অভিজ্ঞতা থেকে। 😉

    সেহেতু আমি এগুলোর দোষ দিতে রাজি না। নিজের বাস্তব অভিজ্ঞতা এবং নিজের পছন্দ মতো পড়াশুনা এবং জানতে পারলে সে ঠিকই নতুন কিছু তৈরি করবে নিঃসন্দেহে বলা যায়!!

আপনি কিন্তু ভাই ‘থিংক ডিফ্রেন্ট’ তত্ত্বকে কাজে লাগিয়েছেন।তারই প্রমাণ আপনার এই টিউন।

Mj

টেকটিউনস আমাকে গুগল শিখিয়েছে | এখন আর গুগলের দিকে যাই না | প্রতিদিন একবার টেকটিউনসই যথেষ্ট | দারুন লিখেছেন ভাই | আপনার সাথে আমিও এই টিউনস এর মাধ্যমে টেকটিউনস কে কৃতজ্ঞতা জানাই |

Hats off tument !!

অনেক সুন্দর লিখছেন! ধন্যবাদ! @ আইটি সরদার

অত্যন্ত চমৎকার একটি টিউন করেছেন সরদার ভাই। আপনাকে ধন্যবাদ

সুন্দর লিখেছেন ভাই।।
আর আমি আপনার সাথে সম্পূর্ন একমত

খুব ভাল পোস্ট ভাইয়া।

এই বিশ্ববিদ্যালয় এর ছাত্র হতে পেরে টেকটিউইন্সের কাছে কৃতঙ্গ

Ati Asole 100% Right……..

ভাই,
আন্তরিকভাবে দুঃখিত, এখানে এই মন্তব্য করার জন্য কিন্তু আমি কোন টিউন করতে পারছি না টিউন থাম্বনিল না দিতে পারায়। কেউ সহযোগিতা করতে কৃতজ্ঞ হব।

    @Fazle Rabbi: -টিউনে ছবি দেওয়ার জন্য যখন insert into post ক্লিক করেন ঠিক পাশেই দেখবেন Use as featured image, এটা দিলে সেটা থাম্বানিল হিসেবে ব্যবহার হবে!!
    না বুঝলে স্ক্রিনশট দেখুনঃ http://prntscr.com/788vzy

    ধন্যবাদ!! 😉

খুব সুন্দর টিউন।

অসাধারন!! আমার মনের মতো লেখা পেলাম।WE LOVE TECHTUNES……..tnks vai

@আইটি সরদার: কত গুলা খাবেন বলেন?? মিষ্টির দোকান ১ দিনের ভাড়া নিব। যত খুসি তত
খাবেন।

    @Prince emon: এক দিনে তো মিষ্টি খেয়ে দিন পার করতে পারবো না? এটা কোন জেলার মিষ্টি?
    😉

সর্দারজি@ ভালো বলেছেন, বাংলায় চমৎকার এ রিসোর্স থাকার কারণেই আমরা বাংলায় গুগলে সার্চ করতে ভরসা পায়। এটাকে প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় বললে কিছু ভুল হবে না। ধন্যবাদ চমৎকার এ টিউনের জন্য।

    @আজিজুর রহমান দুলাল: প্রযুক্তি নিয়ে বাংলায় কোন কিছু গুগল করলে সেটা টেকটিউনস কে এমনভাবে দেখায় দেয় যেন প্রযুক্তি বিষয়ে গুগল না করে, টেকটিউনস করলেই এনাপ!!
    ধন্যবাদ ভাই!! 🙂

অনেক আগে থেকেই দেখছি টেকটিউন্স কে নিয়ে পজিটিভ কিছু লিখে পোস্ট দিলেই ফিচারড হয়ে যায়, এই টিউন টা সুন্দর কিন্তু ফিচারড হবার মত মনে হয় নি। মাঝে মাঝে আপনাদের ফিচারড টিউন পড়ে যতটা জানতে পারি, মজা পাই, মাঝে মাঝে ততটাই অবাক হই সিলেকশন দেখে। তথ্যবহুল+নতুন অথবা ইউনিক+সাজানো গোছানো কন্টেন্ট নিয়ে করা টিউন কে ফিচার করার অনুরোধ রইল ।

    @listener: তথ্যবহুল+নতুন অথবা ইউনিক+সাজানো গোছানো টিউমেন্ট দেখে টিউন নির্বাচিত হবে এটা সবার আশা! টেকটিউনস তাই করে আসছে সব সময়। তবে কিছু অভ্যন্তরীণ ভাবনা অনেক সময় জানার দরকার হয়, নতুন ভিন্ন ভাবনাও চলে আসে, যা প্রশংসার দাবিদার!! কি বলেন? 😉

    ধন্যবাদ টিউমেন্টের জন্য!!

অনেক ধন্যবাদ এতো সুন্দর টিউন এর জন্য। অনেক অনুপ্রানিত হলাম।

সুপার টিউন করছেন বস ভাললাগলো

খুব সুন্দর একটি টিউন করেছেন।

আমি আজকে এডমিট হইছি 🙂

মাত্র কয়েক ঘন্টা হল এই বিশাল পরিবারের সদস্য হয়েছি
। এতদিন শুধুমাত্র টিউন গুলো পড়তাম, অনেক প্রশ্ন অনেক কৌতুহল থাকত। আজকে তার অবসান হল। খুবই ভাল লাগছে।

আমি গর্বিত কারণ আমি টিটির একজন ছাত্র (রেজিষ্ট্রেশনকৃত)।
এখান থেকে শিক্ষা গ্রহণ করতে না পারলে বাংলাদেশে আর কোন University নেই যেখান থেকে শিক্ষা গ্রহণ করতে পারবে। (একান্তই আমার মতামত)

ভাইয়া আপনাকে অনেক মিস করি

    এইতো চলে আসছি আবার আমার ভাইদের মাঝে প্রযুক্তি জগৎ নিয়ে!! অনেক শুভ কামনা দীপ্ত!!! 🙂

সুন্দর পোস্ট

valo laglo.tobe shikkhar vitor vut ta tarale upkrito hobo. kichu spam abong ptc site ar procharona ta techtunes a dekhte chai na. Bangla ta English a likhar jonno dukkhito.

    চাঁদেও কলঙ্ক আছে বলে একটা শব্দ আছে মনে হয়, অন্যদিকে আমাদের বাংলাদেশের বেশির ভাগ মানুষ কতো প্রোডাক্টিভ কাজ করতে পারে সেটাও আশা করি কারও অজানা নয়। আবার ভালো ধানের ভেতর কিছু চিটা থাকবে এটাও স্বাভাবিক। তারপরও বাংলা ভাষায় আমরা যে এতো উপকারী একটি পাঠাগার পেয়েছি তাতেও অনেক কিছু কিনা? 🙂

    তবুও এডমিন প্যানেল আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে এই সামান্য কতেক চিটা দূর করার জন্য। আশা করি সফল হবে। আপনার মূল্যবান মতামতের জন্য অনেক ধন্যবাদ!!

আমারও মনে হয় টেকটিউনে আছি বলেই কিছু শিখতে পারছি।শেখার পদ্ধতি ও কৌশল জানতে মাতৃভায়ায় টেকটিউনই মনে হয় বিশ্বের সেরা সাইট, আর গুগল তো জ্ঞানের ভান্ডার।বাংলায় এরকম সাইট আরো থাকলে প্লিজ জানাবেনে।আপনাকে ধন্যবাদ সুন্দর টিউন করার জন্য।

    All the sites prevailing in Bangla are the master copy of TechTunes. So it’s the one & the best way to stay with Tech in Bangla. With TechTunes Google could be your only one learning partner.
    Thanks a lot for expressing your opinion. 🙂

Information And Technology সর্দার কে অভিনন্দন সুন্দর আরো একটা লেখা উপহার দেয়ার জন্যে ! সাথে প্রতিটি টিউমেন্টের সদুত্তর… 😀

নতুন জানলাম চীনের শিক্ষা ব্যবস্থা সম্পর্কে, ভালো লাগল ভাই ! আর আমি আমার Boss হিসাবে Always Google কে-ই পরিচয় দেই, আর টিটি’র কথা নাইবা বললাম ! But Google না হলে সেই শূন্য’র কোঠায় পড়ে থাকতাম ! এটা Sure…

    অন্য রকম ফয়সাল ভাই আপনার সুন্দর মন্তব্যের জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ! 🙂

এত সুন্দর পোস্টের জন্য ধন্যবাদ।

২ নং পিকটা কি চবি’র বিবিএ ফ্যাকাল্টির?

    আপনার সুন্দর মন্তব্যের জন্যেও আপনাকে অনেক ধন্যবাদ। আর ইমেজটা আসলে গুগল থেকে সংগ্রহ করা, সেহেতু চবি’র কিনা বলতে পারবো না। আপনি চবি’র স্টুডেন্ট হলে বুঝতে পারবেন।
    আবারও অনেক শুভেচ্ছা। 🙂

ভাল লেগেছে।

    আপনার সুন্দর মন্তব্যের জন্য অনেক ধন্যবাদ রাব্বি ভাই! 🙂

    ধন্যবাদ সিলেটের মাহমুদ ভাই আপনার গুরুত্বপুর্ন মন্তব্যের জন্য। আশা করি ভালো কিছু পাবে আমাদের দেশের প্রযুক্তি!
    🙂

হা ভাই আমরা এটাই প্রত্যাশা করি,আপনাদের কাছে

ডিজিটাল পরিব্রাজক
3 দিন 19 ঘন্টা আগে :: 24 November, 2015 at 10:48 pm
এত সুন্দর পোস্টের জন্য অনেক অনেক ধন্যবাদ।

    বাবু দা আপনাকেও অনেক বেশি ধন্যবাদ!
    .
    .
    .
    .
    .
    প্রযুক্তির পাশে থাকবেন আশা করি!! 🙂

Bhaiya please apnar kache amar ekta anurudh? apni amar choto bhaier banano ekta android apps niye ekta tune korben please?bangladeshi bhai hishebe aai opokar toko korle ami anek khushi hobo ? ami niche apps er link ta dilam…Aai apps ta holo Counter Strike niye banano….R Amra Dubai takhi? Amar Email Address julius.hasan@hotmail.com

https://play.google.com/store/apps/details?id=com.ipleomax.ft&hl=en

    আপনাদের প্রবাস জীবন আরও সুন্দর হোক আর আরও বেশি বেশি আমাদের সাথে থাকবেন এই আশা করি। আর আপনার রিকুয়েস্ট রাখার চেষ্টা করবো আমি বা অন্য কারওর মাধ্যমে।
    .
    .
    .
    .
    .
    .
    আবারও অনেক অনেক ধইন্যা পাতার মিস্টি মধুর শুভেচ্ছা। 🙂

Oshadharon 1ti post porlam onekdinpor,Dhonnobaad vai ato valo 1ti post korbar jonno.Shotti techtunes amar tech university. But NAHID KAKU shunle raag korbe j airokom 1ta university government permit na niyei student poraitese r unnoyonshil desher shikkha bebostha niye alochona kortese.Aidesher shikkhabebostha jodi change hoy Taholeto vai SHIKKHITO CHOR toiri hobena,NAHID kakkur mathy basher bari porbe…..Aro onek kisu bolar silo but FINALLY APNAKE AI OSHADHARON TUNE AR JONNO ABARO DHONNOBAAD.