Quantcast

গুগল ম্যাপস অ্যাপের ১০ টি ফিচার যা সম্পর্কে আপনি হয়ত জানেন না !!

0 0 0 0 0
0 টিউমেন্টস 788 দেখা প্রিয়
গুগল ম্যাপস

গুগল ম্যাপ বর্তমান সময়ে আমাদের ভ্রমন কালের একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ। যখনই আপনি কোনো গন্তব্য পথ এর উদ্দ্যেশ্যে আপনার চেনা পরিচিত জায়গা থেকে ২০০-৩০০ কিমি দূরে; তখন আপনি আসে পাশের মসজিদ বা দোকান, মার্কেট খোজার জন্য নিশ্চয়ই গুগল ম্যাপ অ্যাপলিকেশন ব্যবহার করবেন।

তবে এটি কিন্তু খুবই শক্তিসালী একটি অ্যাপলিকেশন, আমাদের স্মার্টফোনে ডিফল্টভাবে ইনস্টল হয়ে থাকা এই সফটওয়্যার বা অ্যাপসটির অনেক ফিচার সম্পর্কে আমরা হয়ত এখনও অবগতই নই। কেননা আমরা কিন্তু এটি বলতে গেলে ব্যবহারই করি ন।, কেবল মাত্র ভ্রমন কালীন সময় ছাড়া। তাই আমরা এন্ড্রয়েড এর গুগল ম্যাপ অ্যাপলিকেশন এর ১০ টি ফিচারস সম্পর্কে জানব; যা সম্পর্কে আমরা হয়ত সঠিকভাবে অবগত নই! আশা করা যায় পরবর্তী ভ্রমনে এই ফিচারস গুলি আমাদের দারুনভাবে কাজে দেবে।

দুরত্ব নির্নয়ঃ

মূলত যে সব জায়গা দিয়ে গুগল কার অতিক্রম করে গিয়েছে ইতিমধ্যে সেসব এলাকায় এই ফিচারটি নিখুতভাবে কাজ করবে সাধারনত। তাছাড়াও স্যাটালাইট এর কারনে সচরাচর নিখুত ফলাফলই পাওয়া যায়। এখানে গুগল ম্যাপ এর নেভিগেশন ফিচার পয়েন্ট A থেকে পয়েন্ট B দুরত্ব নির্নয়ে দারুন কাজে দেয়। তবে কখনও আপনার দরকার হয় একটি পুরো রুট। গুগল এর ম্যাপস এর Measure Distance ফিচারটির মাধ্যমে আপনি পয়েন্টার ড্র্যাগ করেই এক স্হান থেকে অন্য স্হান এর দুরত্ব খুব সহজেই বের করে ফেলতে পারবেন।

  • ম্যাপ এর যেকোন জায়গায় ট্যাপ করুন। যেখান থেকে দুরত্ব মাপা শুরু করবেন। এখানে একটি লাল পিন দেখা যাবে।
  • তারপর রেড পয়েন্টার এর ওপর ক্লিক করুন একটি পপ আপ ইনফো বার ওপেন হবে; সেখান থেকে Measure Distance সিলেক্ট করুন।
  • তারপর আপনও একটি ডটেড লাইন দেখতে পারবেন, এটি আপনি যেদিক নিয়ে যাবেন, গুগল ম্যাপ সে পুরো রুটের দুরত্ব আপনাকে নির্নয় করে দেবে।

 Calibrate Compass:

এর মাধ্যমে আপনি কোনো নির্দিষ্ঠ একটি স্হানের ম্যাপ ডাউনলোড করে রাখতে পারবেন অফলাইন ব্যবহারের জন্য। যখন আপনার কাছে ইন্টারনেট থাকবে না; তখন সেই জায়গা গুলো আপনি আপনি ডাউনলোডেড ম্যাপ থেকে দেখতে পারবেন। আপনি যেকোন লোকেশন এর নামে ক্লিক করার পর " Download" অপশন থেকে ম্যাপটি ডাউনলোড করতে পারবেন। আপনার বর্তমান স্থান যেখানে আপনি  আছেন সেখানে নীল বিন্দু এর ওপর ক্লিক করে calibrate compass ক্লিক করুন। এতে করে আপনার মোবাইল এর কম্পাস এর হিসেবে আপনার ম্যাপ এর দিক ঠিক হয়ে যাবে।

পার্কিং লোকেশন :

গাড়ি কোথায় পার্ক করেছেন প্রতিনিয়ত ভুলে যান? এবার গুগল ম্যাপ আপনার এই সমস্যা সমাধান করে দেবে  । আপনার বর্তমান স্থান যেখানে গাড়ি নিয়ে দাড়িয়ে আছেন সেখানে নীল বিন্দু এর ওপর ক্লিক করে " save your parking "এর ওপর ক্লিক করুন।এতে করে আপনি আপনার পার্ক করা লোকেশন সেট করতে পারলেন। এতে করে পরে  আপনার পার্কিং লোকেশন  খুজে পেতে আপনার অনেক সুবিধা হবে।

ট্রেনের সিডিউল চেকঃ

মূলত এই ফিচারটি আমাদের দেশে নেই; তাও জানার জন্য বলছি। গুগল ম্যাপ পৃথিবীর বপশ কয়েক পাবলিক ট্রান্সপোর্ট কোম্পানির সাথে যোগ সূত্র আছে। এর মধ্যে বিভিন্ন দেশের সরকারি রেল ব্যবস্হা একটি। এর মাধ্যমে আপনি বিভিন্ন বাস স্টপ, ট্রেন স্টেশন,সাবওয়ে স্টেশন এর ওপর ক্লিক করবপন তখন গুগল ম্যাপ আপনাকে ওই স্টেশনে কোন ট্রেন কখন আসবে -যাবে, কোন বাস কখন আসবে বা যাবে এসব বলে দেবে। আমদের দেশে না থাকলেও পাশ্ববর্তী দেশ ভারতে আছে।

হোটেল রুম বুক করুনঃ

মূলত এই ফিচারটিও আমাদের দেশে নেই; তাও জানার জন্য বলি।ইউরোপিয়ান দেশ, ভারত বা আমেরিকায় যখন আপনি কোন নতুন শহরে থাকার জায়গা খুজছেন, চিন্তা নেই গুগল ম্যাপ হেল্প করার জন্য প্রস্তুত। ম্যাপে জুম করুন আর আসেপাশের হোটেল অনুসন্ধান করুন, যেকোন একটিতে ট্যাপ করুন। তারপর আপনি যে হোটেল এর নামে ক্লিক করেছেন, সে হোটেলে রুম আছে কিনা, বুকিং এসব বিষয়ে তথ্য পেয়ে যাবেন।

এখানে Check Availability অপশনে ক্লিক করে তারিখ এবং প্রাইজ সেট করতে পারবেন।মূলত এই ফিচার টি হল গুগল ম্যাপ এর একপ্রকার এড। এর মাধ্যমে বুকিঙে গুগল হোটেল মালিকদের থেকে টাকা নিয়ে থাকে। তবে ভবিষ্যতে এটি বিজ্ঞাপন থেকে বাহির হয়ে সাধারন ক্ষেত্রে আসবে, এব্যাপারে সন্দেহ নেই।

যেকোন কিছু সম্পর্কে বেশি জানুনঃ

আপনি নতুন জায়গায় গেলেন, সে এলাকা সম্পর্কে জানেন না। চিন্তা নেই ভালো কোথাও বসুন। যে এলাকায় আছেন সেখানে জুম করুন। আসেনপাশের হোটেল, ব্যাংক এসবের ট্যাবের ওপর ক্লিক করে এসব সম্পর্কে বেশি জানা শুরু করে দিন। এতে করে আপনার কোন নতুন এলাকায় নিজেকে মানিয়ে নিতে বেশ সুবিধা হবে। টুরিস্ট দের জন্য এটি অবশ্যই করা উচিত।

নতুন জায়গা যোগ করুন :

Your Contribution থেকে নতুন জায়গা যোগ করার জন্য আপনি তেমন অপশন পাবেন না। তবে আপনি মেনুর ভেতর থেকে নিচে Add a missing place বাটনে ক্লিক করে সহজেই নতুন যেকোন জায়গা যোগ করে; তা গুগলে রিভিউ এর পাঠিয়ে দিতে পারবেন।

আপনার গুগল ক্যালেন্ডার বা জিমেইল অ্যাপের সাথে কানেক্টঃ

গুগল ম্যাপ কিন্তু আপনার গুগল ক্যালেন্ডার ও গুগল জিমেইল অ্যাপের সাথে কানেক্ট হতে পারে। আর এটি আপনার ম্যাপিঙে আরও ইনফরমেশন বয়ে আনতে পারে। এখানে আপনি বিভিন্ন লোকেশন অনুযায়ী মিটিং, ফ্লাইট,ইত্যাদি সিডিউল বুক করে রাখতে পারবেন।

লোকাল গাইডঃ

আপনি কিন্তু গুগলের লোকাল গাইড হতে পারেন এবং গুগলের ৩০ মিলিয়ন লোকাল কমিউনিটিতে যোগও দিতে পারেন।আপনি লোকাল গাইড হিসেবে কাজ শুরু করতে মেনু থেকে Your Contributions এ ক্লিক করে আপনি গুগল ম্যাপে কিছু অবদান রাখুন।

এখানে আপনি রিভিউ লিখুন, নতুন জায়গা যোগ করুন,এতে করে গুগল থেকে আপনাকে লোকাল গাইড হিসেবে জগদান করার জন্য মেইল পাঠাবে,সেখান থেকে আপনি একটি ফর্ম পুরন করে লোকাল গাইড হয়ে যেতে পারবেন, আর আপনার বয়স অবশ্যই ১৮ এর অপর হতে হবে। আপনার আশেপাশের লোকেশন এর মাধ্যমে উন্নত করা সম্ভব। পয়েন্ট বাড়ার সাথে সাথে আপনি গুগল এর বিভিন্ন সেব। ফ্রি পাবেন। যেমন : গুগল ড্রাইভ ফ্রী স্টোরেজ। এভাবে আপনি গুগল ের লোকাল গাইড হতে পারেন।

3ডি ভিউঃ

আপনি যদি আমেরিকা বা ইংল্যান্ড এর বাসিন্দা হন তাহলে এই ফিচারটি উপভোগ করতে পারবেন। এখানে আপনি বিভিন্ন গুরুত্ববহ স্হাপনা এর ত্রিমাতৃক প্রতিরূপ আপনার মোবাইল স্ক্রীনে দেখতে পারবেন।

তো কেমন লাগলো আমার আজকের টিউনটি সেটি কিন্তু টিউমেন্টে জানাতে ভুলবেন না। আর হ্যাঁ সবসময় টেকটিউনসের সাথেই থাকুন, আর মেতে উটুন প্রযুক্তির সুরে।

আল্লাহ হাফেজ

যেখানে পরিশ্রম নেই, সেখানে সাফল্য নেই। কেবল সেই সাফল্যের গোপন মন্ত্রটি জানে ;যে বিফল হয়েছে। ফেসবুকে আমি https://www.facebook.com/touhidur.mahin

টিউনার সৌশল মিডিয়া
Ads by Techtunes - tAds
টিউমেন্টস টিউমেন্ট গুলো

You must be logged in to post a Tumment.