Quantcast

আমার গ্রাফিক ডিজাইনার ও সফল ফ্রীলান্সার হওয়ার গল্প। পুরোটা পড়বেন আশাকরি।

0 0 0 0 0
2 টিউমেন্টস 20,157 দেখা প্রিয়
গ্রাফিক্স ডিজাইনিং

আসসালামু আলাইকুম আশাকরি আপনারা ভাল আছেন। আমি টেকটিউনসে নতুন টিউনার। আমার টিউনে কোন ভুল হলে দয়া করে ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন। আমার টাইটেল দেখে নিশ্চয় বুঝে ফেলেছেন যে, আমি কি নিয়ে এই টিউনে কথা বলব। কথা না বাড়িয়ে কাজের কথায় চলে যাই। এই টিউনে শেয়ার করব আমি কিভাবে গ্রাফিক ডিজাইন শিখেছি এবং সফলতার সাথে ফ্রীলান্সার হিসাবে কাজ করে যাচ্ছি। আমি আব্দুস সালাম, পড়াশোনা করি একাউন্টিং এ। ইচ্ছা ছিল পড়াশোনা শেষ করে কোন ব্যাংকে ব্যাংকার হিসাবে চাকুরি করব। কিন্তু কিছুদিন যাবত আমার সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করি। ব্যাংকার হিসাবে চাকুরি করলে হয়তো ৪০ হাজার থেকে ৮০ হাজার টাকা বেতন পেতে পারি। কিন্তু আমি এখন যে পেশায় আছি সেখানে বর্তমান এবং ভবিষ্যৎ ২ টাই এত বড় যে, মাসে ২-৩ লক্ষ টাকা ইনকাম করাও সম্ভব। আমি নিজেকে বড় গ্রাফিক ডিজাইনার বলছি না। আমি গ্রাফিক ডিজাইন এখনও শিখছি। আর আমার এই গল্প আপনাদের সাথে শেয়ার করব।

 

ইন্টারনেট থেকে ইনকাম করা যায় কথাটা অনেক আগেই শুনেছি। কিন্তু এগুলো ভুয়া মনে হত। কারন ২০১১ সালে ডুলেন্সার, স্কাইলেন্সার নামক কিছু ভুয়া ওয়েবসাইটে আমি ৭০০০ টাকা দিয়ে অ্যাকাউন্ট খুলেছিলাম। দুঃখের বিষয় হচ্ছে অ্যাকাউন্ট খোলার কিছুদিন পর এসব ওয়েবসাইট বন্ধ হয়ে যায়। আর আমার ৭০০০ টাকা করে ৪ টি অ্যাকাউন্ট ছিল। মোট ২৮০০০ টাকা দিয়ে অ্যাকাউন্ট ৪ টি কিনেছিলাম আমার বাবার কাছ থেকে টাকা নিয়ে। যাই হোক ২৮০০০ টাকা ধরা খেলাম। সেই থেকে আর ইন্টারনেটে ইনকাম আমার বিশ্বাস হত না। জানেন তো চুন খেয়ে মুখ পুরে গেলে দই দেখলেও ভয় লাগে। আমার ঠিক তেমনটাই হয়েছিল। ফেসবুক ব্যবহার করি ২০১১ সাল থেকেই। তখন থেকেই অনেক ব্লগ পরি, ইউটিউবে ভিডিও দেখি। ইন্টারনেট জগত একটা নেশার জগত। যেখানে একবার প্রবেশ করলে আর এটা ছাড়া থাকা যায় না। আমার পরিচিত কিছু বড় ভাই ছিল তারা আপওয়ার্কে কাজ করত। আমি তাদের কাছ থেকে কাজ শিখতে চেয়েছিলাম। তবে তারা শেখায় নাই। তাদের কাছ থেকে শিখতে চাইলে তারা বলে আমাকে দিয়ে এগুলো হবে না। তখন মনে করতাম হয়ত অনেক কঠিন কাজ তাই আমাকে দিয়ে হবে না। পরে আর কাজ শিখতে পারি না। ততদিনে বুঝে ফেলেছি যে আসলে ইন্টারনেট থেকে ইনকাম করা যায়। তবে কাজ শিখতে হয়। গ্রাফিক ডিজাইন, ওয়েব ডিজাইন, ভিডিও এডিটিং এর কাজ জানলে ইন্টারনেট থেকে টাকা ইনকাম করা যায়। কিন্তু বিষয় হচ্ছে আমি এসব কাজ শিখব কোথায় থেকে সেটাই বুঝতে পারছিলাম না। ইউটিউবে সার্চ করা শুরু করলাম। একদিন গ্রাফিক্স নিয়ে সার্চ করি, পরদিন ওয়েব ডিজাইন নিয়ে সার্চ করি। এভাবে করতে করতে ২-৩ মাস চলে গেল। কিন্তু কিছুই শিখতে পারলাম না। ইউটিউব থেকে গ্রাফিক্স এর উপর অনেক ভিডিও ডাউনলোড করলাম। আমি গ্রাফিক্স এর কিছুই বুঝতাম না। তাই কোনটার পর কি শিখতে হবে সেটা বুঝতে পারলাম না। তাই আমাকে দিয়ে সত্যি সত্যি হবে না মনে করলাম। তারপর হটাত করে ফেসবুকে দেখলাম একটা প্রতিষ্ঠানের গ্রাফিক্স ডিজাইন নিয়ে সিডির বিজ্ঞাপন। আমি সেটা দেখে তাদের সম্পর্কে যাচাই বাছাই করা শুরু করলাম। তাদের ফেসবুক পেজে অনেক রিভিউ দেখলাম। অনেকে তাদের সিডি কিনেছে তাদের কাছে ভাল লাগছে লিখে তারা সেই প্রতিষ্ঠানের ফেসবুক পেজে রিভিউ দিয়েছে। রিভিউয়ের লিঙ্ক দিলাম এখানে। সেগুলো দেখে আমার ভাল লাগলো। তাদের ফেসবুক পেজে অনেক টিউনের টিউমেন্ট পড়েও আমার ভালো লাগে তখন। তাদের সম্পর্কে জানা শুরু করলাম। ওদের ওয়েবসাইটে গিয়ে থেকে থেকে ৮ টি ফ্রী ভিডিও দেখলাম। (আমি যখন প্রথম সিডি কিনেছি তখন তাদের শুধুমাত্র ফটোশপ ও ফ্রীলান্সিং এর উপর সিডি ছিল।) মামুনুর রশিদ ভাইয়ের ভিডিও গুলো দেখে খুব ভাল লাগলো। নিচে ছবি দিলাম। ছবিতে ক্লিক করলে আপনিও ফ্রী ভিডিও গুলো দেখতে পাবেন।

ফ্রী ভিডিও দেখতে এখানে ক্লিক করুন

আমি যখন কিনেছিলাম তখন ফটোশপ ও আউটসোর্সিং সিডির মূল্য ছিল ৫০০ টাকা। ভাবলাম ২৮০০০ টাকা ধরা খেয়েছি একবার আবার ৫০০ টাকা ধরা খাব কিনা কে জানে। পরে চিন্তা ভাবনা করে ৫০০ টাকার একটা রিস্ক নিয়ে তাদের ওয়েবসাইটে অর্ডার করে কিনে ফেলি। কিছুক্ষনের মধ্যে আমরা কাছে কল আসে, এবং আমি অর্ডারটি কনফার্ম করে দেই। তখন থেকে আমার গ্রাফিক ডিজাইনার হওয়ার গল্প শুরু হয়। তাদের একটা টিউনের মধ্যে দেখতে পেয়েছিলাম সিডি/ডিভিডি কিনলে তাদের একটা ফেসবুক গ্রুপ এ জইন করা যাবে। এবং কোন সমস্যায় পরলে তারা সমাধান করে দিবে। এগুলো অনেক কথার উপর অন্ধ বিশ্বাস করে কিনে ফেললাম। ৩-৪ দিন পর ডিভিডি হাতে পেলাম। তারপর সব ফাইল কপি করে আমার কম্পিউটারে নিলাম। 

ডিভিডি তে শুধু ফটোশপের উপর ৭০ টা ভিডিও ছিল। এবং 99designs, Fiverr, Freelancer, Graphicriver, Upwork এর উপর অনেক ভিডিও ছিল। আমি সফটওয়্যার নিয়ে চিন্তা করছিলাম কিন্তু তাদের ডিভিডির মধ্যেই সফটওয়্যার, মোকাআপ, আইকন, ফন্ট এবং কিভাবে সফটওয়্যার ইন্সটল করতে হয় সেটা নিয়েও ভিডিও ছিল। এরপর আমি তাদেরকে কল করে জেনে নিলাম কিভাবে শুরু করব। তারা আমাকে খুব সুন্দরভাবে বলল, আমি সে ভাবেই শুরু করলাম। ২০ দিনে ৫৭ টা ভিডিও দেখে এবং প্রাকটিস করে শেষ করেছি। যখন যখন আমি সমস্যাতে পরেছি তখন তাদের ফেসবুক গ্রুপে টিউন করেছি এবং তাদেরকে কল করেও সমাধান করে নিয়েছি। আসলে গাইডলাইন ছাড়া যে এসব শেখা যায়না ততদিনে বুঝতে পেরেছি। ছোট ছোট সমস্যায় পরলে মাথা ঠিক থাকে না। তখন উনাদেরকে কল করে জেনে নিলে বিষয়টা পানির মত পরিষ্কার হয়ে যায়। একটা কথা বলতে ভুলে গিয়েছি। এই ডিভিডি টা বানিয়েছেন মামুনুর রশিদ ভাই। উনি এত সুন্দর এবং সহজ ভাবে বুঝিয়েছেন যে এটা দেখে যে কেউ শিখতে পারবেন। ৫৭ টা ভিডিও দেখে শেখার পর প্রজেক্টের কাজ শেখা শুরু করি। প্রথমে তাদেরকে কল করে জেনে নেই যে আমি কোন প্রজেক্ট প্রথমে শিখব। তারা বলে বিজনেস কার্ড বানানো সহজ। আর নতুনদের প্রথমে এটা শিখলে অনেক কিছু জানা হবে এবং শুধুমাত্র এটা শিখেই অনলাইনের কাজ করা যাবে। তাই আমি বিজনেস কার্ডের ভিডিও দিয়ে শুরু করি। সেখানে খুব সন্দর ভাবে বুঝানো আছে যে কিভাবে কি করতে হবে। কিভাবে একটা সুন্দর ডিজাইন করা যাবে, কিভাবে নতুন নতুন আইডিয়া পাওয়া যাবে, কিভাবে ডিজাইন কোয়ালিটি অনেক সুন্দর করা যাবে। এসব দেখে নিজে নিজে ট্রাই করি। শুধুমাত্র বিজনেস কার্ড বানানো শিখেছি ১০ দিন প্রাকটিস করে। তারপর যাদের কাছ থেকে ডিভিডি কিনেছি তাদেরকে কল করে জেনে নিলাম আমার এখন কি করা উচিৎ। তারা বলল আমার ডিজাইন কোয়ালিটি আরও সুন্দর করে Freelancer.com এ কন্টেস্টে জইন করার জন্য। আমি তাদের কথামত তাই করলাম। ৭ দিন কাজ করে আমি একটা ১৫৫ ডলারের কন্টেস্ট উইন করেছিলাম। নিচে সেটার একটা ছবি দিলাম।

এই কস্টেস্ট উইন করার পর আমি যে কি পরিমান খুশি হয়েছিলাম সেটা বলে বুঝানোর মত না। তারপর থেকে কাজের প্রতি আরও বেশি করে সময় দিতে থাকলাম। তারপর আমি তাদের কথামত ফাইভারে অ্যাকাউন্ট খুলি। সেখানে অনেক অনেক টিপস দেয়া আছে। আমি মাত্র ৪ দিনের মধ্যেই ফাইভারে প্রথম কাজ পেয়ে যাই। তাদের ডিভিডি তে থাকা ফাইভার নিতে ভিডিও গুলোতে অনেক সুন্দর করে দেখানো আছে কিভাবে কাজ পেতে হবে কিভাবে কাজ করতে হবে কিভাবে কাজ করার পর সাবমিট করতে হবে থেকে শুরু করে সব কিছু। আমি সেই কাজটি সফলতার সাথে শেষ করি। এবং বায়ার আমাকে ৫ স্টার দেয়। মাত্র ১৫ ডলারের কাজ ছিল কিন্তু বায়ার খুশি হয়ে আরও ১০ ডলার দেয়। নিচে ফাইভার থেকে আমার প্রথম ইনকাম তুলে ধরলাম।

পরবর্তীতে তারা যখন ইলাস্ট্রেটরের উপর ডিভিডি পাবলিশ করল তখন সেটার ফ্রী ভিডিও গুলো দেখে সেটাও আমি অর্ডার করেছিলাম। নিচের ছবিতে ক্লিক করলে আপনিও ফ্রী ভিডিও গুলো দেখতে পাবেন।

ফ্রী ভিডিও দেখতে এখানে ক্লিক করুন

 

আমি এখন সব ধরনের ডিজাইন জানি। এবং ফাইভারে রেগুলার কাজ করে যাচ্ছি। আমার গত ৪ মাসের ফাইভার ক্যারিয়ারে মোট ৫৫০০+ ইনকাম করেছি। এবং রেগুলার অনেক কাজের অর্ডার থাকে। নিচে আমার ফাইভার অ্যাকাউন্টের ইনকামের ছবি দিলাম। এসব ইনকামের ছবি দেয়ার কারনে অনেকে আমাকে ছোটলোক মনে করতে পারেন। আসলে আমার এই টিউন আমার সফলতার গল্প শেয়ার করার। তাতে আপনি যদি একটু হলেও সাহস পেয়ে শুরু করেন তাহলেই আমার সার্থকতা।

 

যদি বড় কোন সমস্যাতে পরি তাহলে আমি যাদের কাছ থেকে ডিভিডি কিনেছিলাম তাদেরকে কল করে সমাধান করে নেই। আসলে আমার এই টিউন লেখার কারন ২ টা।

 

১) যারা একদম নতুন কিভাবে শুরু করবে ভেবে পাচ্ছেন না তারা আমার মত করে শুরু করতে পারেন। আমার এই টিউন তাদের জন্য কিছুটা হলেও কাজে দিবে বলে আমি মনে করি।

২) আমরা বাঙ্গালি, তাই কারও কৃতজ্ঞতা শিকার করতে পারি না। তবে আমি গ্রাফিক স্কুলের কাছে সত্যি কৃতজ্ঞ। কারন আমার ফ্রীলান্সার হওয়ার পিছনে তাদের অবদান সবটুকু।

 

আমি সরাসরি উনাদের ডিভিডি কিনতে আপনাকে বলব না। আপনি তাদের ফ্রী ভিডিও গুলো দেখতে পারেন। তাদের সম্পর্কে আমার মত খোঁজ নিয়ে দেখতে পারেন। তারপর আপনার ভাল লাগলে বাকিটা আপনার ইচ্ছা। ফ্রী ভিডিও দেখার এবং ডিভিডি অর্ডার করার লিঙ্ক দিলাম। এখানে ক্লিক করুন

 

আমার এই টিউন যদি আপনার ভাল লেগে থাকে তাহলে আপনার ফ্রেন্ডদের মাঝে শেয়ার করুন। তাতে করে তারাও শেখার সাহস পাবেন। অনেক অনেক ধন্যবাদ এত সময় নিয়ে কষ্ট করে টিউনটি পড়ার জন্য।

আমার জন্য সবাই দোয়া করবেন।

টিউনার সৌশল মিডিয়া
Ads by Techtunes - tAds
টিউমেন্টস টিউমেন্ট গুলো

ভাই, আপনার ফেসবুক আইডি টা দেওয়া যাবে, আপনার সাথে কানেক্টেড হতাম?

অনেক ভাল লাগলো

You must be logged in to post a Tumment.