Quantcast

কিভাবে বুঝবেন যে আপনি যে ডিমটি খাচ্ছেন তা কৃত্রিম ডিম নয়? – একটি জনসচেতনতা মুলক টিউন

0 0 0 2 0
8 টিউমেন্টস 1,507 দেখা প্রিয়
খবর

আসসালামু আলাইকুম কেমন আছেন সবাই আশা করি সবাই ভাল আছেন  ! আমি আপনাদের দোয়ায় ভাল আছি।

আজকে  একটি নতুন টিউন নিয়ে আপনাদের সামনে হাজির হলাম

হয়তো   অনেকে  এইরকম খবর জানেন  আবার  অনেকে  জানেন  না   তাদের  জন্য  এই টিউন

 

আপনি শুনে অবাক হবেন যে, আপনি যে ডিম ভেজে/সিদ্ধ করে খাচ্ছেন তা কৃত্রিম ডিম ও হতে পারেন যা কিনা আপনার স্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক ঝুঁকিপূর্ণ। বাজারে নকল/ কৃত্রিম ডিমে সয়লাব হয়ে গেছে, কিন্তু, আপনি কিভাবে বুঝবেন যে আপনার কেনা ডিমটি আসল ডিম-নকল ডিম নয়? আসুন আমরা জানি এবং সচেতন হই এ থেকে। এই কৃত্রিম ডিমটিকে অনেকে বলেন – ফেক ডিম, প্লাস্টিক ডিম, কেমিক্যাল ডিম, চায়না ডিম ইত্যাদি।

আসুন, প্রথমে আমরা জানি যে, একটা ডিমের কয়টা অংশ থাকে। একটা ডিমের তিন অংশ-ডিমের খোসা, ডিমের সাদা অংশ, ডিমের কুসুম। এই তিনটি অংশ হুবুহু তৈরি করা যাচ্ছে কেমিক্যাল দিয়ে।

সাধারণতঃ কৃত্রিম ডিমের খোসাটি তৈরি করা হয় ক্যালসিয়াম কারবনেট দিয়ে, ডিমের হলুদ ও সাদা অংশের মুল উপাদান সোডিয়াম এলজিনেট, এলাম, গিলেটিন এবং খাদ্য লবন এবং ডিমের কুসুমের কালারের জন্য কমলা হলুদ ফুড কালার।

 

কিভাবে তৈরি করা হয় কৃত্রিম ডিমঃ

  • প্রথমে গরম পানির সাথে সোডিয়াম এলজিনেট কে মিশ্রিত করে তার সাথে গিলেটিন, এলাম ও অন্যান্য উপাদান ভাল ভাবে মিশ্রিত করা হয় যাতে ডিমের সাদা অংশের মত দেখায়।
  • অতঃপর, ডিমের কুসুম তৈরির জন্য অন্য পাত্রে কিছু মিশ্রন নিয়ে তাতে কমলা হলুদ রঙ মেশানো হয়।

Egg Yoke of Fake Egg Making

 

  • তারপরে, এই মিশ্রণকে ছাঁচে ঢালা হয় যাতে কুসুম সদৃশ কোন কিছু তৈরি হয়, এবং এই কুসুমকে অন্য পাত্রে রাখা ক্যালসিয়াম ক্লোরাইডের দ্রবনে ডুবানো হয়।

Pouring Egg Yoke

  • এর ফলে, ডিমের চার পাশে একটি পাতলা পর্দা তৈরি হয়।

fake eggs

  • অতঃপর, এটাকে প্যারাফিন ওয়াক্স, জিপসাম পাওডার, ও ক্যালসিয়াম কারবনেটের মিশ্রণে ডুবানো হয় যাতে ডিমের খোসা তৈরি হয়

20090424fakeegg20

  • ব্যাস, তৈরি হয়ে গেল কৃত্রিম ডিম।

কিভাবে চেক করবেন যে আপনার কেনা ডিমটি কৃত্রিম কিনা?

আপনি যখন একটি কৃত্রিম ডিমকে ভাঙবেন তখন দেখবেন যে ডিমের সাদা অংশ ও কুসুম খুব দ্রুত এক সাথে মিশে যাচ্ছে, কারন, দুটো একি উপাদানে তৈরি,শুধু রংটা ভিন্ন।

  • কৃত্রিম ডিমের খোসাটা আসল ডিমের চাইতে কিছুটা আকর্ষণীয়। সাধারনভাবে ধরাটা কিছুটা কঠিন।
  • কৃত্রিম ডিমটা হাত দিয়ে স্পর্শ করলে কিছুটা অমসৃণ মনে হবে।
  • কৃত্রিম ডিমটাকে ঝাকালে হালকা একটা শব্দ পাওয়া যাবে।
  • আসল ডিমের গা থেকে কিছুটা কাচা মাংসের গন্ধ পাওয়া গেলেও কৃত্রিম ডিমে তা পাওয়া যায় না।
  • কৃত্রিম ডিম ভাঁজলে কুসুমটা সাদা অংশের সাথে সহজে মিশে যেতে চায়।

ভাঁজা ডিম (কৃত্রিম) ঃ

Fried Fake Egg

সিদ্ধ ডিম (কৃত্রিম) ঃ

Boiled Fake Egg

কৃত্রিম ডিম তৈরিতে কেমিক্যালগুলোর নামঃ

 CompositionSide effects and harmsUsage
GlucolactoneMetabolism disorderSolidifier
Benzoic acidHarmful to brain, nerve cell. May cause liver dieses, senile dementia.Preservative
Calcium ChlorideMay cause nerve, liver dieses. May affect ability to produce blood.Egg Shell
CelluloseMetabolism disorderAdditive
AlumMay cause nerve, liver dieses. May affect ability to produce blood.Softener
Amino AcidMetabolism disorderAdditive
Food coloring“Egg yolk” color
Sodium alginate“Egg white” and “egg yolk”
Gelatin“Egg white” and “egg yolk”

কৃত্রিম ডিম বানানোর কেমিক্যালঃ

Raw Material of Fake Eggs

কৃত্রিম ডিমের উদপাদককে বলছি, আপনি হয়তো এক সময় নিজের অজান্তেই আসল ডিমের পরিবর্তে আপনাদের ফর্মুলায় তৈরি ক্ষতিকর কৃত্রিম ডিম খাবেন, তখন, কি বলবেন নিজেকে?

 

expert said about fake egg

 

 

 

 

তাহলে  আজ  এই পজন্ত  আল্লাহফেজ

সবাইকে ধন্যবাদ আমার টিউন পরার জন্য

সবাই  ভাল  থাকবেন  কোন ভুল  হলে মাফ করবেন।

আমি ফেসবুক এ

 আর টেকটিউনস এর সাথে  থাকুন,
টিউনার সৌশল মিডিয়া
Ads by Techtunes - tAds
টিউমেন্টস টিউমেন্ট গুলো

Share korar jonno Thanks

kaje lagbe

এটাও সম্ভব।।।।

রিপিট টিউন, তবুও ধন্যবাদ, কারন এটা সবার মাঝে ছড়িয়ে দেওয়া প্রয়োজন। ধন্যবাদ মাস্টার ভাই ।

আমি অনেক আগেই শুনেছি। তবে বিশ্বাস করি না। যতদিন না নিজে দেখব ততদিন বিশ্বাস করবো না

ভালো জিনিস জানলাম….ভাই

আগে এ নিয়ে টিউন হয়েছে । তবুও ধন্যবাদ

হুম আমি বাজার থেকে ২টা ডিম কিনেছিলাম রোজার মধ্যে। একটা আমি ভেজে খােই আর একটা বড় ভাইকে দেই খাওয়ার জন্য। উনি হাতে নিয়ে বললেন শিহাব আমি এই ডিম খাব না, আমার সন্দেহ হচ্ছে যে, এটা চাইনিজ ডিম। আমি রেগে যাই এবং বলি খাইলে খান না খাইলে রেখে দেন। বড় ভাই ডিম রেখে চলে যায়। কিছু দিন পর ডিমটি হাতে নিয়ে আমারও সন্দেহ হয় এবং আমি আমার আর এক বড় ভাইকে সঙ্গে নিয়ে ডিম টা ভাঙ্ড়ি তার পরের কাহিনী তো আপনার টিউন এর সাথে পুরা মিলে যায়। সুতরাং সবাই খুব সতর্ থাকবেন এই ডিমের ব্যাপারে। 🙂

You must be logged in to post a Tumment.